ইনোভেশনঃ মহাদেবপুর উপজেলা

Read More For Details…….. Inovation Mohadebpur Union

মহাদেবপুর উপজেলায় বাস্তবায়িত ইনোভেশন সংক্রান্ত তথ্যাদি

ইনোভেশনের নাম বিবরণ চিত্র
সেবাকুঞ্জ

উদ্ভাবনী উদ্যোগের পাইলট হিসেবে “সেবাকুঞ্জের মাধ্যমে সমন্বিতভাবে সরকারী-বেসরকারী তথ্য প্রদান ও অভিযোগ নিষ্পত্তি” করার মাধ্যমে সমাধান করা হয়েছে। সরকারি সেবা পেতে সেবা প্রত্যাশীদের হয়রানি হতে হচ্ছে না। সেবা প্রত্যাশীরা চাওয়া মাত্র সেবা পাচ্ছে। একই জায়গায় সরকারি/বেসরকারি সকল তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। সেবা প্রত্যাশীরা সরাসরি ইউএনওকে মতামত/পরামর্শ জানাতে পারছে। তথ্য সেবা পেতে সেবাকুঞ্জে রাখা হয়েছে আবেদন ফরম ‘সহায়িকা’। সেবাবোর্ডে বিভিন্ন দপ্তরের সেবার লিফলেট এর মাধ্যমে সেবা প্রত্যাশীরা জানতে পারছে তার কাঙ্খিত সেবা কোন আইনবলে এবং কত সময় লাগবে। কর্মসূচি বোর্ড থেকে জনগণ জানতে পারেন কত তারিখে কোন দপ্তরে কি কার্যক্রম চলছে। বিশ্রামাগার “অরুনিমাতে” সেবা প্রত্যাশীরা আরামদায়কভাবে বসতে পারছে।

মহাদেবপুর. নওগাঁ মোবাইল এ্যাপস
এ্যাপসটি গুগল প্লেস্টোর থেকে মহাদেবপুর.নওগাঁ লিখে সার্চ দিয়ে ডাউনলোড করে একবার ইন্সটিল করলে পরবর্তীতে অফলাইনে তথ্য সেবা পাওয়া যায়। সেবা প্রত্যাশীদের সেবা পেতে আর সরকারি অফিসে আসতে হয় না। যার ফলে সময় অনেক কম ব্যয় হয়। এ্যাপসের মাধ্যমে সকল প্রকার তথ্য উপজেলার ইতিহাস, ভৌগলিক পরিচিতি, বিভিন্ন পরিসংখ্যান, মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা, ভাষা ও সংস্কৃতি, খেলাধুলা ও বিনোদন এর পাশাপাশি বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানের তথ্য পাওয়া যায়। যোগাযোগের জন্য আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, স্বাস্থ্য সেবা, প্রেস ক্লাব ব্যাংক, আবাসন-হোটেলের তথ্যও পাওয়া যায়। এ্যাপসের মাধ্যমে অভিযোগ, পরামর্শ/ মতামতের জন্য আবেদন করলে তা সরাসরি ইউএনও এর ফেইসবুক পেজে চলে যায় এবং ফেইসবুকের মাধ্যমে তা সমাধান করা হচ্ছে।

মাতৃসেবা এ্যাম্বুলেন্স

মাতৃসেবা এ্যাম্বুলেন্স না থাকার ফলে শিশু ও গর্ভবতী মার স্বাস্থ্য রক্ষা করা সম্ভব হয় না। পরিবহন ব্যবস্থা সহজলভ্য না থাকায় শিশু ও গর্ভবতী মায়ের মৃত্যুর ঝুঁকি বেড়ে যায়। মাতৃসেবা এ্যাম্বুলেন্স তৈরীর ফলে উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের গর্ভবতী মা ও শিশুর স্বাস্থ্য রক্ষার জন্য জরুরী পরিবহনের ব্যবস্থা হয়েছে। এর ফলে গর্ভবতী মা ও শিশুর মৃত্যুর ঝুঁকি কমেছে। এতে প্রতিটি ইউনিয়নের একজন উদ্যোক্তার কর্ম সংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।

ভ্রাম্যমান লাইব্রেরী “দীপশিখা”

ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে সৃজনশীলতার আগ্রহ তৈরীর কোন ভূমিকা ছিল না। প্রয়োজনের সময় হাতের নাগালে পড়াশুনার জন্য প্রয়োজনীয় উপাদান পাওয়া যেত না। ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে সৃজনশীলতার সৃষ্টি হয়েছে। প্রয়োজনের সময় সহজেই হাতের নাগালে তারা লেখাপড়ার উপাদানগুলি পেয়ে যাচ্ছে। এর ফলে ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে লেখাপড়ার নতুন উদ্দীপনার সৃষ্টি হয়েছে।